Tuesday 6 February

বিশ্বের শীর্ষ 10 ধনী ফুটবল ক্লাব (২০১৮)

তীব্র প্রতিযোগিতামূলক ফুটবল দুনিয়ায় এখন যেমন মাঠের পারফরম্যান্স বিবেচিত হয় ঠিক তেমনি মাঠের বাহিরে একটি ক্লাবের অর্থনৈতিক দিকও বিবেচিত হয় সেই ক্লাবের পারফরম্যান্স হিসেবে! বর্তমানে ফুটবলের দুনিয়ায় টাকার ঝনাঝনানিতে কোন ক্লাবের কি অবস্থা আজ আমরা সেটিই জানার চেষ্টা করবো । কারণ, ২০১৮ সালে ধনী ক্লাব গুলোর মাঝে এসেছে ব্যপক পরিবর্তন। টপ টেন র‍্যাংকিংএ কিছু দলের প্রবেশ আর কিছু দলের বাদ পড়া আপনাকে হয়তো সত্যিই অবাক করে দিবে। তাহলে চলুন একটু অবাক হয়েই আসা যাক -  
১০.বায়ার্ন মিউনিখ
জার্মান ফুটবল লীগের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বায়ার্ন মিউনিখ সম্পদের দিকথেকে বিশ্বের সবচেয়ে ধনী দল গুলোর মাঝে ১০ম স্থানে উঠে এসেছে। তারা পিছনে ফেলেছে রাশিয়ান দল সেন্ট পিটাসবারগকে। অ্যাডিডাস, অডি, অ্যালিয়েঞ্জ এর মতো বিশ্ববিখ্যাত ব্র্যান্ড গুলো রয়েছে বায়ার্ন মিউনিখ এর স্পন্সর লিস্টে। জেমস রদ্রিগেজ, ফ্রাঙ্ক রিবেরি, টমাস মূলারদের নিয়ে গড়া বায়ার্নের সব প্লেয়ারদের মূল্য একসাথে ৬০৩ মিলিয়ন ইউরো! বর্তমানে বায়ার্নের সবচেয়ে দামী প্লেয়ার হচ্ছেন রবার্ট লেওয়ান্ডস্কি, তার দাম ৮০ মিলিয়ন ইউরো! ইউরোপের অন্যান্য জায়ান্ট ক্লাব গুলোর মতো বায়ার্ন টাকার ছড়াছড়ি না দেখালেও তারা তাদের ক্লাবের মূল্যবোধ আর নিতিমালার প্রতি খুবি কঠোর।
 
৯.চেলসি
ধনকুব রোমান আব্রাহাম ২০০৩ সালে চেলসির মালিকানা নেওয়ার পরই এ ক্লাবের দৃশ্যপঠ পরিবর্তন হতে থাকে। লন্ডনের এই ক্লাবকে বর্তমানে ইউরোপে শক্তিধর একটি ক্লাবে পরিণত করার পেছনে বেশীরভাগ কৃতিত্বই এর মালিক রোমান আব্রআহাম এর। ৮০০ মিলিয়ন ইউরো মূল্যের ব্লুজরা তাই উঠে এসেছে বিশ্বের টপটেন ধনী ক্লাবের মাঝে নবম অবস্থানে। মোরাতা, কান্তে, হ্যাজারড দের নিয়ে গড়া চেলসি নিজেদের শক্ত প্রতিপক্ষ হিসেবেই নিজেদেরকে প্রতিষ্ঠা করে নিয়ে নিয়েছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগে। ব্লুজ সুপারস্টার ইডেন হ্যাজারড এর মূল্য প্রায় ১০০ মিলিয়ন ইউরো।
 
৮.জুভেন্টাস
মেসিমিলিয়ানো এলিয়েগ্রির অধীনে ইতালির এই বিখ্যাত ক্লাব আবার তাদের হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনছে আস্তে আস্তে। দিবালা, হিগুয়াইন, বুফনদের মতো তারকা ফুটবলাররা লড়ে যাচ্ছে জুবাদের সিরিআ লীগে চ্যাম্পিয়নের জন্য। ৪৭০ মিলিয়ন ইউরো মূল্যের গড়া ইতালির তুরিনরা লীগ চ্যাম্পিয়ন ও গত ২ টি চ্যাম্পিয়নস লীগের ফাইনালে পারফর্ম করেছে। ৮৫ মিলিয়ন ইউরো মূল্যের পাউলো দিবালা আর ৭০ মিলিয়ন ইউরোর গঞ্জালো হিগুইন জুভেন্টাস এর সবচেয়ে দামী প্লেয়ার বলে বিবেচিত।
 
৭.ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড
ভাবছেন ইংল্যান্ডের এই বিখ্যাত ক্লাব যারা অনায়াসেই সেরা ৩টি ধনী ফুটবল দলের মাঝে থাকে তারা কি করে হুট করে র‍্যাঙ্কিং এর ৭ এ নেমে আসে! ২০১৫ সালের পর থেকেই হুট করে ইংল্যান্ডের বিখ্যাত এই ক্লাবটির ঋণের পরিমাণ বাড়তে থাকে। ৫২৪ মিলিয়ন ইউরোর তারকাখচিত এ দলে রয়েছে পগবা, সানচেজদের মতো তারকা । আর তাদের দায়িত্বে রয়েছে স্পেশাল ওয়ান হোসে মরিনহোর মতো কোচ। রেকর্ড সাইনিং ৯০ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে পল পগবা কে ইউনাইটেড জুভেন্টাস থেকে নিয়ে আসে। রাজকীয় এই ক্লাব সম্পদের দিক থেকে কিছুটা পিছিয়ে গেলেও নতুন কোচের অধীনে তারা তাদের সরবোচ্চ চেষ্টাই করছে প্রিমিয়ার লীগ পূর্ণ দখলের জন্য।
 
৬.রিয়াল মাদ্রিদ
এবার সত্যিই আপনাদের অবাক হবার পালা! ভাবছেন বিশ্বের ১ নাম্বার ধনী ক্লাব কিভাবে ৬ নাম্বারে আসে! তবে ২০১৮ সকারস এর জরিপ মতে আপনাকে তাই মানতে হবে। রিয়াল মাদ্রিদ ১ থেকে নেমে এসেছে ৬ নাম্বার ধনী ক্লাবে। আরো অবাক করার তথ্য হচ্ছে স্পেনের মাত্র রিয়াল মাদ্রিদ এই আছে টপ টেনে। নেই বার্সার মতো ক্লাব! ৭৭১ মিলিয়ন ইউরোর গর্ব করার মতো এক স্কোয়াড রয়েছে বর্তমানে রিয়াল মাদ্রিদের। ম্যানেজার হিসেবে আছেন সাবেক মাদ্রিদ প্লেয়ার জিনেদিন জিদান!!! ১২০ মিলিয়ন ইউরো মার্কেট মূল্যের ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোই রিয়ালের সবচেয়ে দামী প্লেয়ার। কিন্তু এ মৌসুম রিয়ালের একদম ভালো যাচ্ছে না। ইতিমধ্যেই চির প্রতিদন্ধী বার্সার কাছে হারাতে বসেছে লীগ টাইটেল।
 
৫.টটেনহাম হটস্পার
রিয়াল মাদ্রিদ ইউনাইটেড এর মতো দলগুলোকে পিছনে ফেলে আশ্চর্যজনক ভাবে ইংল্যান্ডের ক্লাব টটেনহাম উঠে এসেছে ২০১৮ এর ধনী ১০টি ক্লাবের তালিকায় ৫ নাম্বারে! ইউরোপের অন্যান্য জায়ান্ট ক্লাব গুলোর মতো এতো টা জনপ্রিয় না হলেও গত কয়েক বছর ধরে তারা ধারাবাহিক পারফর্মেন্স করে যাচ্ছে। ৪৬৩ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে গড়া টটেনহামের স্কোয়াড সমানে লড়ে যাচ্ছে ইউরোপের বড় বড় দলগুলোর সাথেও। বাজার দাম ১২০ মিলিয়ন ইউরো মূল্যের হ্যারি কেইন বর্তমানে টটেনহামের সবচেয়ে দামী প্লেয়ার।
 
৪. গুয়াংঝো ইভারগ্রান্ডে এফসি
গুয়াংঝো ইভারগ্রান্ডে এফসিই একমাত্র এশিয়ান দল হিসেবে ২০১৮ সালের ধনী ১০টি ক্লাবের তালিকায় উঠে এসেছে। ফুটবল বিশ্বে চীন ক্রমশই এগিয়ে যাচ্ছে আর তার প্রতিনিধিত্ব করছে গুয়াংঝো ইভারগ্রান্ডে। চীনের সবচেয়ে দামী ক্লাব ও এটি। বিশ্ব বিখ্যাত আলীবাবা গ্রুপের মালিকানাধীন এই ক্লাবের আর্থিক সম্পদের পরিমাণ প্রায় ১০৫০ মিলিয়ন ইউরো। যদিওবা ক্লাবটির স্কোয়াডের প্লেয়ারদের টোটাল দাম মাত্র ৪৩ মিলিয়ন ইউরো। কিন্তু ব্যাবসায়িক দিক থেকে ক্লাব টি এগিয়ে গিয়েছে অনেক দূর।
 
৩. প্যারিস সেইন্ট-জারমাইন
গোয়ালের দুষ্ট গরু হিসেবে ফুটবল জগতে ফ্রান্সের এই ক্লাবটির এখন পরিচয়। কারণ, বিশ্লেষকরা বছেন প্যারিস সেইন্টই নেইমার আর এম্বাপ্পে কে আকশচুম্বী দামে কিনে ফুটবলের বাজার কে এমন উচ্চ ভিলাসী পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছে এবং আর্থিক দিক থেকে একটি অস্থিতিশীলতা তৈরি করেছে। ক্লাবের নতুন চেয়ারম্যান নাসের আল খেলাইফি দলে আসার পরেই তারা মরিয়া হয়ে গিয়েছে চ্যাম্পিয়নস লীগ জয়ের জন্য। সেই লক্ষ্যেই চোখ কপালে উঠার মতো দাম দিয়ে তারা দলে বিড়িয়েছে ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমার আর ফ্রান্সের নবাগত তারকা এম্বাপ্পেকে। বাজার মূল্যে ১৫০ মিলিয়ন ইউরোর নেইমারই তাদের সবচেয়ে দামী প্লেয়ার।
 
২. আর্সেনালের
লিস্টের সবচেয়ে টুইস্ট নাম সম্ভবত এটিই! ভাবছেন গানারস রা হুট করে কিভাবে ২ নাম্বার ধনী ক্লাবের তালিকায় উঠে এলো হুট করে! আর্সেনালের মালিক স্ট্যান ক্রোক এবং আলিশার উসমানভ সম্ভবত ক্লাবটিতে বিনিয়োগ করতে যাচ্ছেন বিশাল পরিমাণ অর্থ। সেই আভাসই দেখা যাচ্ছে বছরের শুরু থেকে। ইংল্যান্ডের ঐতিহ্যবাহী এই ক্লাবটির নির্দিষ্ট সম্পদের পরিমাণই ৭৬৬ মিলিয়ন ইউরো! মেসুত অজিল দের নিয়ে গড়া দল টিও বেশ ভারসাম্য একটি দল। আর কোচের পদে রয়েছেন অভিজ্ঞতাশীল কোচ আরসেন অয়েঙ্গার। যদিও ক্লাবটির একটি অভ্যাস হলো তারা তাদের অর্থের তুলনায় খুব কম টাকাই ঢালে প্লেয়ার কেনা বেচার জন্য। তাই হয়তো তাদের নেট টাকার পরিমাণ এতো বেশী।
 
১.ম্যানচেস্টার সিটি
লিস্টের ১ নাম্বার ক্লাবটি হয়তো এতোক্ষনে আপনার অনুমান করেই ফেলেছিলেন! হ্যা আপনাদের স্বভাবত অনুমানটি সম্পূর্ণ সঠিক। আবুধাবি ইউনাইটেড গ্রুপের ৮৭% শেয়ার রয়েছে ক্লাবটিতে এবং বাকিটা চীন মিডিয়া ক্যাপিটালের মালিকানাধীন। ক্লাবটি ইতিমধ্যে তাদের স্টেডিয়াম ও ট্রিনিং গ্রাউন্ড এর পিছনে বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যায় করেছে। আর সিটি ফ্যানবেজ ও বেড়ে চলছে দিন দিন হু হু করে বিশ্বব্যাপী। ৬৩৭ মিলিয়ন ইউরো মূল্যের পরিশ্রমী এক দল নিয়ে ফুটবল বিশ্বে লড়ছে ম্যানচেস্টার সিটি। ইতিমধ্যেই তারা প্রিমিয়ার লীগ অনেকটাই নিশ্চিত করে ফেলছে! পেপ গারদিওয়লার সঠিক হাতেই দলটি সাফল্য পেয়ে যাচ্ছে। ১১০ মিলিয়ন ইউরো বাজার মূল্যের কেভিন ডি ব্রুইন সিটির সবচেয়ে দামী প্লেয়ার। আগুয়ারো, স্টারলিং,লিরয় সানেরা হয়তো আগামী ফুটবল বিশ্ব রাজত্ব করতেই প্রস্তুতি নিচ্ছে!
 
(সকারক্স ফুটবল ভিত্তক জরিপঃ বিশ্বের সেরা ১০টি আর্থিকভাবে নিরাপদ ক্লাবের তালিকা,২০১৮)
 
 
সপ্নঘুড়ির সাথে থাকার জন্য আপনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ । আমাদের পোস্ট গুলো যদি ভালো লেগে থাকে বা ইনফরমেটিভ হয় তাহলে প্লিজ শেয়ার করুন আপনার বন্ধু দের সাথে ।
       "স্বপ্ন দেখুন, স্বপ্ন নিয়েই বাচুন, অন্যের স্বপ্ন কে উৎসাহ দিন"